ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি – প্রথম পর্ব(০১) | Electronics Parts Bangla

2
3384
ইলেক্ট্রনিক্স

ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি – প্রথম পর্ব

আজ আপনাদের ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি সম্পর্কে ধারনা দিবো । যারা ইলেক্ট্রনিক্স এর সাথে নতুন করে জড়াতে চলেছেন তাদের জন্য আজকের লিখাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ । আজ আপনাদের ইলেক্ট্রনিক্স এর কোন সার্কিট তৈরি অথবা কোন যন্ত্র কোন কাজে ব্যবহার করা হয় সেগুলো নিয়ে পুরোপুরি জানতে পারবেন এবং সেগুলোর দাম কেমন হতে পারে সেটাও ধারনা পাবেন । চলুন তাহলে আমাদের মূল আলোচনা শুরুকরা যাক ।

আজ আমরা যে বিষয়ে জানবো সেগুলো হলোঃ

১। একটি সার্কিট তৈরি করতে প্রয়োজনীয় টুলস ।

২। ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি এর আরো কিছু দরকারি টুলস ।

শুরুতেয় বলে রাখি আপনাদের একদম পরিষ্কার ধারনা দিতে চলেছি ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি এর যন্ত্রপাতি সম্পর্কে । ঠিক যেমন করে আপনারা স্কুলে নতুন বই পাবার পরে বারে বারে উল্টে দেখতেন এবং নতুন কিছু পেলে সেটা তারাতারি পরে নিতেন । এখানে আমাদের লিখাগুলো দ্বারাও আপনার মাঝে ইলেক্ট্রনিক্স নিয়ে কৌতোহল জাগবে এবং সেখার আগ্রহ বেড়ে যাবে ।

ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি এর যন্ত্রপাতি সমূহ

ইলেক্ট্রনিক্স এর যে কোন সার্কিট তৈরি করতে গেলে অনেক রকমের যন্ত্রপাতির দরকার হয়ে পরে । তারমাঝে যে গুলো খুব দরকারি সেগুলো আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হল । মূলত ইলেক্ট্রনিক্স এর প্রোজেক্ট অথবা সার্কিট বানাতে তাতাল বা সোল্ডারিং আয়রন, রাঙ্গ বা সোল্ডারিং ওয়্যার, সোল্ডারিং আয়রন স্টান্ড, রজিন, সাকার বা ডিসোল্ডারিং পাম্প, কাটার , ভেরো বোর্ড, ব্রাড বোর্ড, স্ক্রু-ড্রাইভার ইত্যাদি যন্ত্রের প্রয়োজন পরে ।

ইলেক্ট্রনিক্স

তাতাল বা সোল্ডারিং আয়রনঃ এটা ভেরো বোর্ড অথবা ব্রাড বোর্ড এর উপড়ে কোন পার্টস বসানোর কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে । মূলত আমরা এই পদ্ধতিকে ঝালাই বলে থাকি । তাতাল বা সোল্ডারিং আয়রনের জন্য বিশ থেকে ত্রিশ (২০W-৩০W) ওয়াট এর ইলেক্ট্রিক সাপ্লাই দরকার পরে । সোল্ডারিং আয়রন বাজারে কিনতে গেলে বিভিন্ন দামের পাওয়া যাবে । দামের সাথে প্রডাক্টের কোয়ালিটি নির্ভর করে । তবে আপনারা ১৩০-২২০ টাকার মাঝে কোয়ালিটি সম্পন্ন তাতাল পেয়ে যাবেন ।

ইলেক্ট্রনিক্স

রাঙ্গ বা সোল্ডারিং ওয়্যারঃ নাম শুনেয় বোঝা যাচ্ছে এটা এক প্রকার ওয়্যার । সোল্ডারিং আয়রন যখন গরম হয়ে যায় তখন এই ওয়্যার এবং সোল্ডারিং আয়রন এর স্পর্শ করানো হয় । এই স্পর্শ করানোর ফলে রাঙ্গ বা সোল্ডারিং ওয়্যার গলে গিয়ে বোর্ড এবং পার্টস এর মাঝে কন্টাক্ট তৈরি করে ফেলে । বাজারে সোল্ডারিং ওয়্যার ৬০০-৯০০ টাকা কেজি বিক্রি করা হয় । কম পরিমাণে সোল্ডারিং ওয়্যার কেনাই ভালো, কারন এগুলো অনেক কম ফুরয় ।

ইলেক্ট্রনিক্স

 

 

সোল্ডারিং আয়রন স্টান্ডঃ সোল্ডারিং আয়রন স্টান্ড ব্যবহার করা হয় সোল্ডারিং আয়রন গরম হয়ে যাবার পরে যাতে নিচে রাখতে না হয় সেই কারনে । সোল্ডারিং আয়রন অনেক গরম হয়ে যায় বলে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে । তাই সোল্ডারিং আয়রন স্টান্ড ব্যবহার করা জরুরী । আপনারা বাজারে ১০০-১৫০ টাকার মাঝে সোল্ডারিং আয়রন স্টান্ড কিনতে পাবেন ।

ইলেক্ট্রনিক্স

 

রজিনঃ রজিন মূলত ব্যবহার করা হয় যাতে সোল্ডারিং আয়রনের মাথা সবসময় পরিস্কার থাকে । যখন সোল্ডারিং আয়রনের মাথা পরিস্কার থাকবে তখন আপনার কাজ করার কোয়ালিটি ভালো হবে । বাজারে এগুলোর ছোট ছোট কৌটা পাওয়া জায়, দাম ৩০-৫০ টাকা ।

 

ইলেক্ট্রনিক্স

সাকার বা ডিসোল্ডারিং পাম্পঃ ডিসোল্ডারিং পাম্প এর কাজ হচ্ছে আপনি যখন কোন পার্টস, বোর্ড থেকে তুলে ফেলতে চাইবেন সেটা তুলতে সাহায্য করা । সাকারের সাহায্যে খুব সহজেয় পার্টস তুলে ফেলা যায় । কোয়ালিটি নির্ভর করে সাকারের দাম ভিন্ন হয়, মোটামুটি সাকার কিনতে গেলে আপনার অন্তত ১০০-১৬০ টাকা লাগবে ।

ইলেক্ট্রনিক্স

 

কাটারঃ কাটার বলতে এখানে ওয়্যার কাটার বঝানো হয়েছে । কোন সার্কিট তৈরি করতে গেলে ওয়্যার ছারাও আরো কিছু ছোট ছোট জিনিশ কাঁটার দরকার হয় । এই সময় আপনারা কাটার ব্যবহার করবেন । এগুলো বাজারে ৮০-২৫০ টাকা দামের হয় । আরো বেশি দামের গুলো বেশি ভালো, অনেকদিন কাজ করতে পারবেন ।

 

 

ইলেক্ট্রনিক্স

ভেরো বোর্ডঃ এই বোর্ডে আমরা আমাদের প্রয়োজনীয় সার্কিট স্থাপন করি । এটাই আমাদের মেইন অংশ যেখানে সার্কিটের সকল পার্টস বশানো হয়ে থাকে । বাজারে যে ভেরো বোর্ড পাওয়া যায় ওগুলো ২০-২৫ টাকা নেয় এবং এগুলোর মাঝে (২০ X ২৫) টা করে ছিদ্র থাকে ।

ইলেক্ট্রনিক্স

ব্রাড বোর্ডঃ যখন আমরা কোন সার্কিট করতে আগ্রহী হই তখন এই ব্রাড বোর্ডের উপড়ই প্রথম পরীক্ষা করা হয় যে আমাদের সার্কিট তৈরি করা ঠিক আছে কিনা । আমাদের প্রয়োজনীয় আউটপুট আসতেছে কিনা । এইখানে পরীক্ষার পরে ভেরো বোর্ডে বসানো হয় । কোয়ালিটি মোতাবেগ এগুলোর দাম ২০০-৫০০ টাকা হয় ।

ইলেক্ট্রনিক্স

 

স্ক্রু-ড্রাইভারঃ এই যন্ত্রটা কাজে লাগেনা এমন জায়গা খুবই কম । আপনি যখন সার্কিট বানাবেন তখন এটা লাগবে আবার বানানো শেষে যখন নানারকম কানেকশন বের করবেন তখনও এটা লাগবে । স্ক্রু-ড্রাইভার লাগেনা এমন কোন সার্কিট অথবা প্রোজেক্ট পাওয়া যাবে বলে মনে হয় না । স্ক্রু-ড্রাইভার যে কোন জায়গাতেয় কিনতে পাওয়া যায়, দাম পরে ২৫-৩০০ টাকা পর্যন্ত ।

 

বন্ধুরা ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি নিয়ে আপনাদের জন্য এই টুকুই ছিলো আজকের আয়জনে । যেহেতু এটা আমাদের ইলেক্ট্রনিক্স হাতেখড়ি এর প্রথম পর্ব তাই আপনাদের মাঝে আরো নতুন পর্ব নিয়ে খুব শিগ্রয় হাজির হব । আপনাদের মতামত অবশ্যয় আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাবেন । কোন বিষয়ে প্রশ্ন থাকেলেও আমাদের জানাতে পারেন, EEEcareer সর্বদা আপনাদের সাপোর্ট দিয়ে যাবে । সবাই সুস্থ থাকুন, ফিরে আসছি খুব শিগ্রয় ।

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY